Travel

সাতক্ষীরা কিসের জন্য বিখ্যাত

সাতক্ষীরা জেলা, বাংলাদেশের পশ্চিমবঙ্গে অবস্থিত একটি জেলা। সাতক্ষীরা কিসের জন্য বিখ্যাত এই জেলাটি বাঙালি সংস্কৃতি, ঐতিহাসিক প্রাচীনতা, এবং প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্য বিখ্যাত। সাতক্ষীরার সৌন্দর্যময় নেচার, মহুড়া হাওয়ার জন্য পরিচিত, যা দর্শনীয় প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের একটি উত্কৃষ্ট উদাহরণ। এখানে প্রাচীন মন্দির, ঐতিহাসিক স্থানগুলি ও প্রাচীন সংস্কৃতির গুরুত্বপূর্ণ অংশ রয়েছে। সাতক্ষীরার বঙ্গপুরা, পাহাড়পুরা, আইটাখোলা, খুলনা, ও বাগেরহাটে বেশিরভাগ চিনি ও মাষদের উৎপাদনের কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত। এছাড়া, এখানে চরমাজেদের জন্য পরিচিত সাতক্ষীরা মিষ্টি, সাতক্ষীরা মাছ, ও অন্যান্য স্থানীয় খাবারের অধিক চাপলুস রূপ পেয়েছে। সাতক্ষীরা একটি ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃত

সাতক্ষীরা কিসের জন্য বিখ্যাত

সুন্দরবন, মায়ি চম্পার দরগা, তেঁতুলিয়া জামে মসজিদ, যিশুর গির্জা, মান্দারবাড়িয়া সমুদ্রসৈকত, মায়ের মন্দির, নলতা শরীফ, দেবহাটা থানা, সাতক্ষীরা জেলা চিংড়ি ও সন্দেশের জন্য বিখ্যাত। সাতক্ষীর জেলাটি থেকে দেশের রপ্তানীকৃত চিংড়ির প্রায় ৭০ভাগ হয়ে থাকে।

সাতক্ষীরা কত সালে প্রতিষ্ঠিত হয়?

১৮৬১ সালে যশোর জেলার অধীনে ৭টি থানা নিয়ে সাতক্ষীরা মহকুমা প্রতিষ্ঠিত হয়। পরে ১৮৬৩ সালে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের চব্বিশ পরগনা জেলার অধীনে এই মহকুমার কার্যক্রম শুরু হয়। পরবর্তীতে ১৮৮২ সালে খুলনা জেলা প্রতিষ্ঠিত হলে সাতক্ষীরা খুলনা জেলার অর্ন্তভূক্ত একটি মহকুমা হিসাবে স্থান লাভ করে।

সাতক্ষীরা কত নং সেক্টর ছিল?

প্রতিটি সেক্টরে একজন করে অধিনায়ক নিযুক্ত করে যুদ্ধ পরিচালনার দায়িত্ব অর্পণ করা হয়েছিল । সাতক্ষীরা অঞ্চল ছিল অষ্টম ওনবম সেক্টরের অধীন ।

সাতক্ষীরা কোন জনপদের অন্তর্গত ছিল?

এক অনির্বচনীয় নান্দনিক অনুভবের প্রাচীন জনপদ সাতক্ষীরা একদা রাজা প্রতাপাদিত্যের যশোহর রাজ্যের অন্তর্গত ছিল। বারোভূঁইয়াদের অন্যতম রাজা প্রতাপাদিত্যের রাজধানী এ জেলার কালিগঞ্জ ও শ্যামনগর এলাকায়। বাংলাদেশের মানচিত্রে দক্ষিণ-পশ্চিম কোণে সাতক্ষীরা জেলার অবস্থান। এ জনবসতি প্রাচীনকালে খ্যাত ছিল বুড়ন দ্বীপ নামে।

সাতক্ষীরা জেলা

সাতক্ষীরা জেলা বাংলাদেশের একটি জেলা। এটি খুলনা বিভাগ এর অন্তর্গত। সাতক্ষীরা বাংলাদেশের নৈঋত কোণে অবস্থিত, দক্ষিণ-পশ্চিমের জেলা; যার পূর্বে খুলনা, উত্তরে যশোর, পশ্চিমে পশ্চিমবঙ্গের চব্বিশপরগনা এবং দক্ষিণে মায়াময় সুন্দরবন ও বঙ্গোপসাগর। এই জেলাটি আশাশুনি, কলারোয়া, কালিগঞ্জ, তালা, দেবহাটা, শ্যামনগর এবং সাতক্ষীরা সদর – এই সাতটি উপজেলার সমন্বয়ে গঠিত।

সাতক্ষীরা জেলায় উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্ব হলো:

অমৃতা খান: অভিনেত্রী।
খান বাহাদুর আহ‌্ছানউল্লা – সমাজ সেবক, সাহিত্যিক শিক্ষাবিদ ও শিক্ষা সংস্কারক;
মুহাদ্দিস আব্দুল খালেক – কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সেক্রেটারি বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী, সমাজ সেবক,শিক্ষাবিদ;
ডা: এম আর খান – জাতীয় অধ্যাপক, বিশিষ্ট শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ;
পচাব্দী গাজী – বিশ্ব বিখ্যাত বাঘ শিকারী
আজিজুননেছা খাতুন – প্রথম মুসলিম মহিলা কবি
মোহাম্মদ ওয়াজেদ আলী – একজন বাঙালি লেখক/কবি;
সিকান্দার আবু জাফর – বিশিষ্ট কবি ও সাহিত্যিক;
আবেদ খান – সাংবাদিক ও টিভি ব্যক্তিত্ব;
অমর মিত্র (৩০ আগস্ট, ১৯৫১)
আবুল কাশেম মিঠুন- বিশিষ্ট চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্ব
সাবিনা ইয়াসমিন – প্রখ্যাত কণ্ঠশিল্পী;
নীলুফার ইয়াসমীন – বিশিষ্ট কণ্ঠশিল্পী;
ফরিদা ইয়াসমিন
ফৌজিয়া ইয়াসমিন
আমিন খান- চিত্রনায়ক;
রানী সরকার – বিশিষ্ট চলচ্চিত্র অভিনেত্রী;
তারিক আনাম খান – নাট্যশিল্পী;
আফজাল হোসেন – নাট্যশিল্পী;
ফাল্গুনী হামিদ – নাট্যশিল্পী;
মৌসুমী হামিদ – অভিনেত্রী
সৈয়দ জাহাঙ্গীর – বিশিষ্ট চিত্রশিল্পী (একুশে পদকপ্রাপ্ত);
মাসুরা পারভিন:ফুটবল খেলোয়াড়।
মুস্তাফিজুর রহমান – ক্রিকেটার;
সৌম্য সরকার -ক্রিকেটার;
আ. ফ. ম. রুহুল হক – সাবেক স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী;
এম মনসুর আলী – সাবেক মন্ত্রী, সমাজ সেবক ও রাজনীতিবিদ;
সৈয়দ দীদার বখত – সাবেক প্রতিমন্ত্রী ও সাংবাদিক;
বিধান চন্দ্র রায় – ভারতের পশ্চিমবঙ্গের দ্বিতীয় মুখ্যমন্ত্রী।
শঙ্কর রায় চৌধুরী – ভারতের সাবেক সেনা প্রধান, দেবহাটা, সাতক্ষীরা।
জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায় অভিনেতা, আবৃত্তিশিল্পী।

সাতক্ষীরা সম্পর্কিত সাধারন জ্ঞান

~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~
সাতক্ষীরা জেলা সম্পর্কিত ৮২ টি প্রশ্ন-উত্তর পাবেন এখানে। আসুন “সাতক্ষীরাকে জানি” এবং তথ্যটি শেয়ার করে অন্যকে জানার সুযোগ করে দেয়।
১। ভোমরা দেশের কততম বৃহৎ স্থল বন্দর। উত্তরঃ তৃতীয় বৃহৎ
২। ভোমরা স্থল বন্দর কত সালে প্রতিষ্ঠা হয়। উঃ ১৯৯৬ সালে
৩। মুক্তিযুদ্ধে সাতক্ষীরা কততম শত্রুমুক্ত জেলা। উঃ দ্বিতীয়
৪। সাতক্ষীরা কত তারিখে শত্রুমুক্ত হয়। উঃ ১৯৭১’সালের ৭ই ডিসেম্বর
৫। বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় উপজেলার নাম কি। উঃ শ্যামনগর।
৬। হাড়িয়াভাঙ্গা নদী কোথায় অবস্থিত। উঃ সাতক্ষীরা জেলায়।
৭। ভারত বাংলাদেশকে বিভক্তকারী নদীর নাম কি। উঃ হাড়িয়াভাঙ্গা
৮। সাতক্ষীরা জেলায় বনভুমির পরিমান কত। উঃ ১৪৪৫.১৮ বর্গ কিলোমিটার।
৯। সাতক্ষীরা জেলা হতে কোন কোন পণ্য বিদেশে রপ্তানি হয়। উঃ হিয়ায়িত চিংড়ি, সুন্দরবনের মধু, আম, টালি, ও সন্দেশ।
১০। সাতক্ষীরা ঘোষ ডেয়ারি কিসের জন্য বিখ্যাত। উঃ মিষ্টান্ন তৈরীতে, বিশেষ করে সন্দেশের জন্য।
১১। দেশের দুগ্ধ উৎপাদনে সাতক্ষীরা জেলা কততম। উঃ দ্বিতীয়
১২। বাংলাদেশের দুধের গ্রাম বলা হয় সাতক্ষীরার কোন গ্রামকে। উঃ তালার জেয়ালা গ্রাম।
১৩। হাড়িয়াভাঙ্গার মোহনায় অবস্থিত কোন দ্বীপ। উঃ- দক্ষিণ তালপট্টি দ্বীপ (ভারতে নাম পূর্বাশা বা নিউমুর)
১৪। সুন্দরবনে বাংলাদেশ ও ভারতের সীমানা নির্ধারণকারী নদী কোনটি ? উঃ হাড়িয়াভাঙ্গা নদী
১৫। সাতক্ষীরা কিসের জন্য বিখ্যাত। উঃ সুন্দরবন, চিংড়ি, আম ও সন্দেশের জন্য।
১৬। সাতক্ষীরার পূর্ব নাম কি। উঃ সাতঘরিয়া।
১৭। সাতক্ষীরার দুঃখ বলা হয় কোন নদীকে। উঃ বেতনা ও কপোতাক্ষ নদীকে।
১৮। বেতনা নদীর অপর নাম কি। উঃ বেত্রাবতী
১৯। এক জেলার এক পন্য কি সেটা, যেটা বিদেশে রপ্তানি করা হয়। উঃ টালি
২০। বাংলাদেশের প্রথম বাল্যবিবাহ মুক্ত উপজেলা কোনটি। উঃ সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ।
২১। সাতক্ষীরা জেলার আয়তন কত। উঃ ৩৮৫৮.৩৩ বর্গ কিলোমিটার।
২২। সাতক্ষীরা জেলার দক্ষিণে কি অবস্থিত। উঃ বঙ্গোপসাগর।
২৩। সাতক্ষীরা জেলার পূর্বে কোন জেলা। উঃ খুলনা জেলা
২৪। সাতক্ষীরা জেলার পশ্চিমে কি অবস্থিত। উঃ ভারতের
পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য অবস্থিত।
২৫। সাতক্ষীরা জেলা কত দ্রাঘিমাংশে অবস্থিত। উঃ ৮৯°২০´
২৬। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে সাতক্ষীরা জেলার উচ্চতা কত। উঃ ১৬ ফুট উচুঁতে।
২৭। বৈকারী সীমান্ত অবস্থিত কোথায়। উঃ-সাতক্ষীরা জেলায়।
২৮। সাতক্ষীরা জেলার জলবায়ু কিসের অন্তর্ভূক্ত। উঃ ক্রান্তীয় মৌসুমী জলবায়ুর।
২৯। সাতক্ষীরার মহকুমার প্রকৃত জন্ম কত সালে।উঃ ১৮৫২ সালে
৩০। সাতক্ষীরার আবহাওয়া কি। উঃ লবণাক্ত আবহাওয়া।
৩১। প্রাচীনকালে সাতক্ষীরা কি দ্বীপ নামে খ্যাত ছিল। উঃ বুড়ন দ্বীপ।
৩২। সাতক্ষীরা জেলা প্রতিষ্ঠা লাভ করে কত সালে।উঃ ১৯৮৪ খ্রিস্টাব্দ।
৩৩। সাতক্ষীরার প্রথম শহীদ কে। উঃ শহীদ আব্দুর রাজ্জাক
৩৪। সাতক্ষীরার আদি/ মুল স্থপতি কে। উঃ প্রাণনাথ রায়চৌধুরী।
৩৫। আধুনিক সাতক্ষীরার রূপকার কে। উঃ শহীদ স ম আলাউদ্দিন।
৩৬। যশোরের রাজা প্রতাপাদিত্যের রাজধানী কোথায় অবস্থিত। উঃ ঈশ্বরীপুরে, শ্যামনগর।
৩৭। সাতক্ষীরা জেলার প্রধান আকর্ষনীয় স্থান কি। উঃ সুন্দরবন ও নলতা রওজা শরীফ।
৩৮। সাতক্ষীরা জেলার মোট আয়তনের কত% বনভুমি। উঃ ৩৭.৫৩%।
৩৯। মান্দারবাড়িয়া সমুদ্র সৈকত কোথায় অবস্থিত। উঃ শ্যামনগর উপজেলায়।
৪০। নীলকুঠির বর্তমান অবস্থান কোথায়। উঃ দেবহাটা থানা।
৪১। সাতক্ষীরা পৌরসভা কত সালে স্থাপিত হয়। উঃ ১৮৬৯ সালে।
৪২। হারদ্দ্হ সীমান্ত সাতক্ষীরার কোন থানায় অবস্থিত। উঃ দেবহাটা
৪৩। কাকডাঙ্গা সীমান্ত সাতক্ষীরার কোন থানায় অবস্থিত। উঃ কলারোয়া।
৪৪। সাহিত্যিক মোহাম্মদ ওয়াজেদ আলীর জন্ম কোন গ্রামে। উঃ বাশদাহ।
৪৫। নীলডুমুর কোথায় অবস্থিত। উঃ শ্যামনগর থানায়
৪৬। গুনাকারকাটি পীরের নাম কি। উঃ মাওঃ আঃ আজিজ রহ
৪৭। সাতক্ষীরাতে বস্তু ছাড়া তালা বলতে কি বুঝায়। উঃ উপজেলার নাম।
৪৮।খান বাহাদুর কার উপাধী। উঃ পীর কামেল আহসান উল্লাহ রহঃ
৪৯। বাংলাদেশের কোন জেলাতে হেলিকপ্টার মাটি দিয়ে চলে। উঃ সাতক্ষীরা।
৫০। কবি সিকান্দার আবু জাফর কোন গ্রামে কত সালে জন্ম গ্রহণ করেন। উঃ তালার তেতুলিয়া গ্রামে ১৯১৯ সালে।
৫১। বর্তমানে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের নাম কি। উঃ নাজমুল আহসান।
৫২। ভেটকি মাছের আর এক নাম কি। উঃ পাতাড়ী মাছ।
৫৩। বাগদা ও গলদা কোন পানির মাছ। উঃ বাগদা লোনা পানির আর গলদা স্বাদু পানির মাছ।
৫৪। সাদা সোনা বলতে কি বুঝায়। ( White Gold) বলা হয়। উঃ চিংড়ি সম্পদ।
৫৫। ঘেরের বাগদা ধরতে কি ব্যবহার করা হয়। উঃ কট সুতোর ঘুনি
৫৬।দুবলার চর কোথায় অবস্থিত। উঃ সুন্দরবনের দক্ষিণে।
৫৭। দক্ষিণ তালপট্টি দ্বীপ কোন নদীর মোহনায় অবস্থিত! উঃ হাড়িয়াভাঙ্গা।
৫৮। বাংলাদেশের কোন প্রাণী হিংস্রতায় পৃথিবীর সেরা। উঃ রয়েল বেঙ্গল টাইগার।
৫৯। সাতক্ষীরা এক্সপ্রেস কার উপাধী। উঃ ক্রিকেটার মুস্তাফিজুর রহমান।
৬০। সাতক্ষীরা টাইগার্স সৌম্য সরকারের গ্রামের বাড়ি কোথায়। উঃ আশাশুনির মহিষাডাঙ্গা গ্রামে।
৬১। বাংলাদেশের তথা এশিয়ার বাঘমামা বলা হয় কাকে।উঃ পচাব্দী গাজী।
৬২। বাঘমামা পচাব্দী গাজীর জন্মস্থান কোথায় এবং তার প্রকৃত নাম কি। উঃ শ্যামনগরের সোরা গ্রামে, তার প্রকৃত নাম আঃহামিদ গাজী
৬৩। সাতক্ষীরা জেলায় কবে কোথায় প্রথম শহীদ মিনার স্থাপন করা হয়। উঃ পি এন হাইস্কুল চত্বরে ১৯৬২ সালে নির্মাণ করা হয়েছিল সাতক্ষীরার প্রথম শহীদ মিনার।
৬৪। বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বৃহৎ শহীদ মিনার কোথায় স্থাপিত। উঃ সাতক্ষীরা শহীদ আঃরাজ্জাক পার্কে।
৬৫। দেশের সেরা কন্ঠ শিল্পী সাবিনা ইয়াসমিনের গ্রামের বাড়ি কোথায়। উঃ সাতক্ষীরার মুকুন্দপুর গ্রামে।
৬৬। টাকী কিসের জন্য বিখ্যাত। উঃ বিজয় দশমীতে প্রতিমা বিসার্জন উপলক্ষে দু বাংলার মানুষের মিলনমেলার জন্য।
৬৭। বর্তমানে বাংলাদেশ জাতীয় ভলিবল দলের অধিনায়ক কে এবং তার জন্মস্থান কোথায়। উঃ সাঈদ আল জাবির রাজেস, তার বাড়ি কলারোয়া থানায়।
৬৮। বাংলাদেশ হতে বিদেশী লীগে খেলতে যাওয়া প্রথম মহিলা ফুটবলার কে। উঃ সাবিনা খাতুন, বাড়ি সাতক্ষীরা সদরে।
৬৯। বাংলাদেশে শিশুরোগ চিকিৎসার পথিকৃৎ (Father of the peadiatrics) বলা হয় কাকে। উঃ জাতীয় অধ্যাপক এম আর খানকে।
৭০। বাংলাদেশের প্রথম মহিলা সংসদ সদস্য কে। উঃ সৈয়দা রাজিয়া ফয়েজ, সাবেক মহিলা-শিশু ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রী।
৭১। বাংলাদেশের প্রথম খ্রিষ্টান গির্জা কোথায় স্থাপিত হয়। উঃ ঈশ্বরীপুর গির্জা বাংলাদেশের প্রথম গির্জা।
৭২। সাতক্ষীরার বিখ্যাত কয়েকজন ব্যক্তির নাম বলুন। উঃ খান বাহাদুর আহসানুল্লাহ রহঃ, কবি সিকান্দার আবু জাফর, সাহিত্যিক মোহাম্মাদ ওয়াজেদ আলী, জাতীয় অধ্যাঃ ডাঃ এম আর খান, সাংবাদিক আবেদ খান ও তোয়াব খান প্রমুখ।
৭৩। সাতক্ষীরার প্রধান দর্শনীয় কয়েকটি স্থান কি কি। উঃ ম্যানগ্রোভ সুন্দরবন, মান্দারবাড়িয়া সমুদ্রসৈকত, শ্যামনগর জমিদার বাড়ি, নলতা রওজা শরীফ ও মোজাফ্ফর গার্ডেন সাতক্ষীরা।
৭৪। সাতক্ষীরার অন্যতম কয়েকটি পূরাকির্তী কোনগুলো। উঃ রাজা প্রতাপাদিত্যেরর বাড়ি, ঈশ্বরীপুর হাম্মাম খানা, জাহাজঘাট দূর্গ, প্রবাজপুর শাহী মসজিদ, টাউন শ্রীপুর জমিদারবাড়ি, সোনাবাড়িয়া মঠ, শ্যামসুন্দর সন্দির, তেতুলিয়া মসজিদ, ছয়ঘরিয়া জোড়া শিবমন্দির, মায়েরবাড়ি পঞ্চমন্দির।
৭৫। সাতক্ষীরা সরকারী কলেজ কত সালে স্থাপিত এবং এর আঞ্চলিক নাম কি। উঃ ১৯৪৬ সালে, স্থানীয় ভাষায় রাজার বাগান কলেজ বলা হয়।
৭৬। উপমহাদেশে বোর্ড পরীক্ষায় নামের পরিবর্তে রোল ও রেজিস্ট্রেশন নম্বরের প্রবর্তক কে। উঃ খান বাহাদুর আহসান উল্লাহ রহঃ।
৭৭। বর্তমানে বাংলাদেশের দ্রুততম মানবী কে। উঃ শিরিন আক্তার (সদর সাতক্ষীরা)
৭৮। বাংলাদেশ আহলে হাদীস এর প্রতিষ্ঠতা কে। উঃ ড:আসাদুল্লাহ আল গালিব (সাতক্ষীরা)
৭৯। দৈনিক কাফেলা ও প্রত্রদুতের প্রতিষ্ঠতা কে। উঃ আব্দুল মোতালেব ও সম আলাউদ্দিন।
৮০। মুক্তিযুদ্ধের ৯ নং সেক্টরের প্রতিষ্ঠতা কে। উঃ ক্যাপ্টেন শাহজাহান মাস্টার (সাব সেক্টর কমান্ডার)
৮১। বাংলা সাহিত্যের প্রথম মুসলিম মহিলা কবি কে। উঃ আজিজুন নেছা খাতুন (সাতক্ষীরা)
৮২। বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলে সাতক্ষীরার সর্বপ্রথম খেলোয়ার কে। উঃ কাজী জিয়াউর রশীদ রূপম।

প্রশ্ন ও উত্তর

সাতক্ষীরা অর্থ কি?

ইতোমধ্যেই সাতঘরিয়া ইংরেজ রাজকর্মচারীদের মুখে ‘সাতক্ষীরা’ হয়ে যায়। দ্বিতীয় মতটি হলো একদা সাত মনীষী সাগর ভ্রমণে এসে একান্ত শখের বসে (মতানৈক্যে রান্নার উপকরণাদি না পেয়ে) ক্ষীর রান্না করে খেয়েছিলেন। পরবর্তীতে ‘ক্ষীর’ এর সাথে ‘আ’ প্রত্যেয় যুক্ত হয়ে ‘ক্ষীরা’ হয় এবং লোকমুখে প্রচলিত হয়ে যায় সাতক্ষীরা।

সাতক্ষীরা কত নং সেক্টর ছিল?

প্রতিটি সেক্টরে একজন করে অধিনায়ক নিযুক্ত করে যুদ্ধ পরিচালনার দায়িত্ব অর্পণ করা হয়েছিল । সাতক্ষীরা অঞ্চল ছিল অষ্টম ওনবম সেক্টরের অধীন ।

5/5 - (1 vote)

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button